• শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:০৮ অপরাহ্ন
Headline
ইউনিক এডুকেয়ার হাইস্কুলের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় ও দোয়া মোনাজাতের মাধ‌্যমে শেষ হলো দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমা ক্ষমতার অপব্যবহার করে দীর্ঘ দিন যাবত একই কর্মস্থলে গাজীপুর সদরের শিক্ষা অফিসার শামীম আহম্মেদ গাজীপুর সাংবাদিক ঐক্য ফোরামের আহবায়ক কমিটি গঠন গাজীপুর কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশনের হাজী মুছা সভাপতি, ইসমাঈল মাস্টার সম্পাদক নির্বাচিত এই বিজয় জনগণের বিজয়: শেখ হাসিনা অবাধ-স্বচ্ছ ও উৎসবমুখর নির্বাচন হয়েছে, জানালেন বিদেশি পর্যবেক্ষকরা বিলুপ্তির পথে তাঁতশিল্প, হুমকির মুখে ব্যবসায়ীরা এই নির্বাচন দেশের গণতান্ত্রিক অভিযাত্রায় মাইলফলক হয়ে থাকবে: কাদের অনিয়ন্ত্রিত বেকারি পণ্য বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি

হরতাল-অবরোধের প্রভাব পণ্য পরিবহনে, বাড়তি ব্যয়ের বোঝা ভোক্তাদের কাঁধে

রিপোর্টারের নাম / ৩২ টাইম:
আপডেট: বুধবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক :
সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর ডাকা দফায় দফায় হরতাল ও অবরোধের কারণে যান চলাচল বিঘিœত হচ্ছে। যাত্রীবাহী বাহনের পাশাপাশি পণ্য পরিবহনকারী যানগুলোও ঠিকমতো চলতে পারছে না। যেগুলো ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে সেগুলোর জন্য দাবি করা হচ্ছে বাড়তি ভাড়া।

ফলে পণ্য পরিবহন ব্যয় বৃদ্ধির কারণে বাড়ছে পণ্যের দাম। আর এই বাড়তি দামের বোঝা বহন করতে হচ্ছে ভোক্তাদের। তবে শুধু এই একটি কারণই নয়, পণ্য পরিবহনে ব্যয় বৃদ্ধির অজুহাতে বাড়তি টাকা নেওয়ার অভিযোগও রয়েছে ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, টানা হরতাল-অবরোধে চলমান সংকটে ঢাকামুখী কিংবা ঢাকা থেকে দেশের অন্য স্থানে ট্রাক ও কাভার্ডভ্যানে পণ্য সরবরাহ কমেছে উল্লেখযোগ্য হারে। নিরাপত্তার কথা ভেবে সব মালিক রাস্তায় ট্রাক ছাড়ছেন না। এ সুযোগে যারা পণ্য পরিবহন করছেন তারা ভাড়া বাড়িয়েছেন ২০-৩০ শতাংশ। একই দূরত্বে আগের তুলনায় বেশি গুনতে হচ্ছে দুই থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত।

পরিবহন মালিকদের দাবি, ঝুঁকির কারণে অনেকেই গাড়ি বের করতে চাচ্ছেন না। গাড়ি, চালক ও সহকারীর জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলছে বেশিরভাগ পরিবহন। তারপরেও ভাড়া উল্লেখযোগ্য হারে বাড়েনি। কিছু ক্ষেত্রে সংকটের কারণে বেশি নেওয়া হচ্ছে। জানা যায়, ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় পুলিশি পাহারায় রপ্তানি পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান চলাচল করলেও সব ধরনের পণ্যের ক্ষেত্রে খুব বেশি নিরাপত্তা নেই। ফলে কিছুকিছু পণ্যের পরিবহন ব্যবস্থা প্রায় ভেঙে পড়েছে।

বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনাও ঘটেছে, যাতে পরিবহনের ক্ষতি হয়েছে। পরিবহন সংকট নিয়ে কথা হয় বেশকিছু পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের সঙ্গে। প্রায় সবাই পরিবহন সংকট এবং সে সুযোগ কাজে লগিয়ে একশ্রেণির পরিবহন মালিকের মনোপলি ব্যবসার কথা বলেছেন।

দেশের অন্যতম ভোগ্যপণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান সিটি গ্রুপ জানায়, স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় চলমান অবরোধে কোম্পানিটির পণ্য সরবরাহ কমেছে প্রায় ২৫ শতাংশ। নিরবচ্ছিন্নভাবে সারাদেশে পণ্য সরবরাহ করতে পারছে না প্রতিষ্ঠানটি।

সিটি গ্রুপের পরিচালক বিশ্বজিৎ সাহা বলেন, রাতে যেখানে যেখানে পারছি পণ্য পাঠাচ্ছি। তবে অনেক জায়গা থেকে পণ্য ফিরে এসেছে। কোথাও পথে আটকা রয়েছে। মার্কেটে সরবরাহ ঠিক রাখতে সমস্যা হচ্ছে। তিনি বলেন, করোনা ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে দীর্ঘদিন ধরেই দেশের ব্যবসা টালমাটাল অবস্থায়।

যে কারণে মূল্যস্ফীতির মধ্যে অভ্যন্তরীণ ভোগ্যপণ্যের ব্যবসা-বাণিজ্য খারাপ কাটছে। এমন সময় এ হরতাল-অবরোধের কারণে ব্যবসায় অচলাবস্থা সৃষ্টি হচ্ছে। সরবরাহ বিঘিœত হওয়া ছাড়াও অন্য উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা রয়েছে ব্যবসায়ীদের। ছোট থেকে বড়- সব ধরনের ব্যবসায়ীই নাশকতার কারণে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার ঝুঁকিতে বলে জানান। অনেক এলাকায় প্রতিষ্ঠানে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুরের মতো ঘটনাও ঘটছে। বিভিন্ন কোম্পানির পণ্য সরবরাহকারী গাড়িতে হামলা হয়েছে।

জানমালের ঝুঁকিতে রয়েছেন কোম্পানিতে কর্মরতরা। এদিকে আকিজ প্লাস্টিকস ও পিভিসি ডিস্টিবিউশনের অ্যাসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার আবু হেনা মো. মোস্তফা কামাল বলেন, আমরা যারা চুক্তিতে পরিবহন মালিকদের কাছ থেকে গাড়ি নিচ্ছি তারাও সমস্যায় আছি।

তাদের গাড়ির প্রফিট মার্জিন কমে গেছে। তারা এখন চাহিদামতো গাড়ি দিতে চাচ্ছে না। আবু হেনা বলেন, আবার অনেক ক্ষেত্রে দিতেও পারছে না। তাদের যেখানে যেখানে প্রফিট মার্জিন বেশি থাকছে সে গাড়িগুলো দিচ্ছে। এরপর বাইরে থেকে গাড়ি নিতে গেলে বাড়তি ভাড়া দিতে হচ্ছে। কম গাড়ি থাকায় বেশিরভাগ মালিক মনোপলি ব্যবসা করছে।

এখন ভাড়া বৃদ্ধির হার প্রায় ২০ থেকে ২৫ শতাংশ। পণ্য পরিবহনের সঙ্গে যুক্ত ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান মালিকদের দুই সংগঠন বলছে, হরতাল-অবরোধের কারণে পণ্য পরিবহন অর্ধেকে নেমেছে। স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে গাড়ি চলছে অর্ধেক। কিছু মালিক ঝুঁকির কারণে গাড়ি চালাচ্ছেন না। আবার কোনো কোনো ক্ষেত্রে ভাড়া না হওয়ার কারণে বিভিন্ন এলাকার গাড়ি বসে রয়েছে।

লোকসান গুনছেন তারা। বাংলাদেশ কাভার্ডভ্যান-ট্রাকপণ্য পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি মকবুল আহম্মেদ বলেন, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের পর থেকে দেশের পরিবহন ব্যবসা খারাপ যাচ্ছে। এর মধ্যে হরতাল-অবরোধের প্রভাব ব্যবসা-বাণিজ্যে পড়েছে মারাত্মকভাবে। বিশেষ করে পরিবহনে ক্ষতি ভিন্নমাত্রা নিয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে রাজনৈতিক কর্মসূচির সব আক্রমণের লক্ষ্যে পরিণত হয়েছে ট্রাক-বাস। তিনি বলেন, ঝুঁকির কারণে স্টাফরা (চালক ও সহকারী) ভাড়া নিয়ে যেতে চায় না। ভয় পাচ্ছে। যে পরিস্থিতি তাতে ব্যবসার লালবাতি জ¦লতে বাকি নেই।

তবে মকবুল আহম্মেদ বলেন, যে পরিমাণ ঝুঁকি তারপরেও ট্রাক আগের ভাড়ায় চলছে। কোথাও কোথাও দু-এক হাজার টাকা বেশি দিতে হচ্ছে, যেখানে একদম সংকট। তবে সার্বিকভাবে ভাড়া এখনো বাড়েনি। বরং তিনি বলেন, অনেক পরিবহন মালিক ভাড়া পাচ্ছেন না। বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির কয়েকজন নেতা বলেন, একটি গাড়ি যদি একদিন বসিয়ে রাখা হয় তাহলেও এর পেছনে পার্কিং খরচ, শ্রমিকদের বেতন দিয়ে প্রায় আড়াই হাজার টাকা খরচ হয়। এভাবে প্রায় এক লাখের বেশি গাড়ি এ হরতাল-অবরোধে অচল বসে রয়েছে। গাড়ি মালিকরা বলছেন, একটি ট্রাক যদি আংশিক পোড়ানো হয় তাহলেও সেটা সারাতে লাখ পাঁচেক টাকা লাগে। আর যদি ইঞ্জিনসহ পুড়ে যায় তাহলে ক্ষেত্রবিশেষে ২০ থেকে ৩০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়। অনেক ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ লোকসান মালিককে দিতে হয়।

ইন্স্যুরেন্স থাকলেও সে সুবিধা পাওয়া যায় না। এদিকে পণ্য সরবরাহকারীরা জানান, আগে উত্তরবঙ্গ থেকে চট্টগ্রামে ২০ থেকে ২১ হাজার টাকার মধ্যে চাল ও ডাল পরিবহন করা যেত। বর্তমানে সেই ভাড়া ২৮ থেকে ৩০ হাজার টাকা। ঢাকা থেকে চট্টগ্রামের ট্রাকভাড়া বেড়েছে প্রায় পাঁচ হাজার টাকা। অবরোধের আগে চট্টগ্রাম বন্দর পর্যন্ত একটি আট টনের ট্রাকের ভাড়া ছিল ১৬ হাজার টাকা। কিন্তু এখন তা ২১ হাজার টাকা। সাড়ে ১২ টনের ট্রাকের ভাড়া ছিল ২৬ থেকে ২৭ হাজার টাকা, যা এখন ৩১ থেকে ৩২ হাজার টাকা চাওয়া হচ্ছে। একইভাবে বেনাপোল থেকে পণ্যবোঝাই একটি ট্রাক অবরোধের আগে ঢাকায় আসতো ১৫ হাজারের মধ্যে। এখন আসছে ১৮ থেকে ২২ হাজার টাকায়।

তবে ঢাকা থেকে বেনাপোল যাওয়ার পথের ভাড়া কিছুটা কম, ১৬ থেকে ১৮ হাজার টাকার মধ্যে। পরিবহন মালিকরা বলছেন, পরিবহন মালিকদের মধ্যে আতঙ্ক আছে। চোরাগোপ্তা হামলা হচ্ছে। ট্রাকে আগুন দিলে তার দায় কে নেবে বলে প্রশ্ন তাদের। তবে হরতাল-অবরোধ কর্মসূচির দিনে পণ্যবাহী পরিবহন, তেলবাহী পরিবহন, দূরপাল্লার গণপরিবহন ও অন্য যানবাহন এস্কর্ট বা নিরাপত্তা দিচ্ছে র‌্যাব। দেশব্যাপী পণ্যবাহী পরিবহন, তেলবাহী পরিবহন, দূরপাল্লার গণপরিবহন ও অন্য যানবাহনকে নিরাপত্তা দিয়ে গন্তব্যস্থলে পৌঁছে দিতে কাজ করছে বিশেষায়িত এই সংস্থাটি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো নিউজ
https://slotbet.online/